ঢাকা, রবিবার ১৬ই জুন ২০১৯ , বাংলা - 

বাংলাদেশের জয়ে ভারতীয় মিডিয়ার ‘উপহাস’

বিশেষ প্রতিনিধি।।ঢাকাপ্রেস২৪.কম

সোমবার ৩রা জুন ২০১৯ সকাল ১১:১১:১৬

ফের বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নিয়ে কটূক্তি করল ভারতীয় গণমাধ্যম। গতকাল রোববার বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৩৩০ রানের পাহাড় গড়ে ২১ রানের জয় পায় বাংলাদেশ। টাইগারদের এমন জয়ে যখন বিশ্ব বাহবাহ দিচ্ছে, ঠিক তখনই এই জয়কে দুঃখজনক হিসেবে আখ্যায়িত করল ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

ভারতের জনপ্রিয় টিভি চ্যানেল এনডিটিভি তাদের চ্যানেলে বাংলাদেশের জয়কে ব্রেকিং নিউজ হিসেবে দিয়ে লেখে, ‘বিশ্বকাপের প্রথম দুঃখজনক ঘটনা, বাংলাদেশ চমকে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকাকে।’ অথচ ভারতের সাবেক ক্রিকেটারদের মুখে ছিল মাশরাফি বাহিনীর জয়জয়কার।

দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পর টুইটারে প্রশংসায় ভাসছেন টাইগাররা। আইসিসির টুইটে লেখা হয়, ‘বাংলাদেশ ২১ রানে জিতেছে। সম্পূর্ণভাবে একটি অসাধারণ অলরাউন্ড টিম পারফরম্যান্স।’

এ জয়কে কোনো অঘটন বলতে চান না পাকিস্তানের ক্রিকেট সাংবাদিক মাজহার আরশাদ। ব্যাট হাতে ৩৩০ রানের বিশাল সংগ্রহ জমা করে বাংলাদেশ। দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ের প্রশংসা করেন ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার মাইকেল ভনও। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ডার্ক হর্স হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

ভারতের সাবেক ক্রিকেটার মোহাম্মদ কাইফ লিখেন, ‘বাংলাদেশের দারুণ জয়। অলরাউন্ড ব্যাটিং পারফরম্যান্স এবং বোলাররা দক্ষিণ আফ্রিকাকে অনায়াসে রান করতে দেয়নি।’

আরেক সাবেক ভারতীয় ভিভিএস লক্ষ্মণ লিখেন, ‘বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ, ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ দলীয় স্কোর করার জন্য কি দারুণ দিন! কৌশলগত দিক দিয়ে তারা দুর্দান্ত ছিল পাশাপাশি শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার মজুদে পর্যাপ্ত ফায়ারপাওয়ারও ছিল না।’

ম্যাচটি উপভোগ করেন ইংল্যান্ডের রবি বোপারাও। এ ছাড়া সাবেক প্রোটিয়া ক্রিকেটার হার্শেল গিবস মনে করেন, সব দিক দিয়েই দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে ভালো খেলেছে বাংলাদেশ।টাইগারদের প্রশংসা করে ধারাভাষ্যকার রাসেল আরনোল্ড লিখেন, ‘সাবাস দ্য দেশ! দারুণ জয়। টুর্নামেন্টের দুর্দান্ত শুরু!!’

আরেক ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে লিখেন, ‘বাংলাদেশের খুবই মনোমুগ্ধকর খেলা। ব্যাটিং বেশ শক্তিশালী মনে হচ্ছে এবং তাদের দারুণ নেতৃত্ব দেওয়া হচ্ছে। দক্ষিণ আফ্রিকার নিজেদের নিয়ে কাজ করার অনেক জায়গা আছে।’ দক্ষিণ আফ্রিকার মিডল অর্ডারে ভালো ব্যাটসম্যানের ঘাটতি আছে বলেও মনে করেন হার্শা।