ঢাকা, রবিবার ১৬ই জুন ২০১৯ , বাংলা - 

শুনানি ঝুলছে ৩ বছর,অপেক্ষায় ২৬ মামলা

ষ্টাফরিপোর্টার।।ঢাকাপ্রেস২৪.কম

সোমবার ১০ই জুন ২০১৯ সকাল ১০:৫৩:৫৮

প্রায় তিন বছর ধরে শুনানির অপেক্ষায় আছে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে বিভিন্ন মেয়াদে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের করা আপিল। এসব মামলার আপিল শুনানি না হওয়ায় এখন পর্যন্ত ২৬টি মামলা জমা হয়েছে।

ট্রাইব্যুনালের প্রথম দিকের বেশ কয়েকটি মামলার কার্যক্রম শেষে দ্রুত রায় বাস্তবায়ন হলেও ধীর গতিতে চলছে পরের মামলাগুলো। সর্বশেষ ২০১৬ সালে জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর ফাঁসি কার্যকরের পর আর কোনো মামলার শুনানি হয়নি। দীর্ঘদিনেও মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন বিচার সংশ্লিষ্টরা।

আপিল শুনানির বিষয়ে জানাতে চাইলে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম একাধিকবার বলেছেন, ‘আপিল শুনানি শুরু করার চেষ্টা করছি। শিগগিরই এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’ কিন্তু দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ এখন পর্যন্ত নজরে পড়েনি।

জানতে চাইলে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত বলেন, ‘দীর্ঘসময় আপিল শুনানি না হওয়ায় জনমনে নানা প্রশ্ন ও বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে। আশা করি চলতি (জুন) মাসে আপিল শুনানি শুরু হলে পর্যায়ক্রমে বাকিগুলোও শেষ হবে। দ্রুতবিচার কার্যক্রম শেষ হলে উভয়পক্ষই মনে করবে তারা বিচার পেয়েছে।’

তদন্ত সংস্থার প্রধান আব্দুল হান্নান খান বলেন, ‘গত প্রায় তিন বছর ধরে একটি মামলাও শেষ না হওয়ায় আমরা হতাশ। দীর্ঘদিন ধরে বেশ কয়েকটি মামলা আপিল বিভাগে জমে আছে, আরও নতুন মামলা আসছে। এ অবস্থায় জমা মামলাগুলো শেষ না হওয়ায় জনগণ হতাশ, আমরাও হতাশ। আমরা চাইবো অবশ্যই মামলাগুলোর চূড়ান্ত সমাপণী ঘটুক।’

ট্রাইব্যুনাল সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে ২৬টি মামলা আপিল শুনানির জন্য অপেক্ষায় রয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে। এসবের মধ্যে আসামিদের পক্ষে ২৫টি আর সরকারপক্ষে আছে একটি।

এদিকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা এ টি এম আজহারুল ইসলাম ও জাতীয় পার্টির নেতা সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারের আপিল আবেদন শুনানির জন্য আগামী ১৮ জুন দিন ঠিক করা আছে। অন্যদিকে, জামায়াতে ইসলামীর সিনিয়র নায়েবে আমির আব্দুস সুবহানের আপিল কার্যতালিকায় থাকলেও শুনানির জন্য তারিখ ধার্য হয়নি।

আপিল শুনানির অপেক্ষায় আছে- মোবারক হোসেন, মাহিদুর রহমান, ফোরকান মল্লিক, সিরাজ মাস্টার, খান আকরাম হোসেন, আতাউর রহমান, ওবায়দুল হক তাহের, শামসুদ্দিন আহম্মেদ, মহিবুর রহমান বড় মিয়া, মুজিবুর রহমান আঙ্গুর মিয়া, মো. শামসুল হক ওরফে বদরভাই, এস এম ইউসুফ আলী, সাখাওয়াত হোসেনের মামলা।

এছাড়াও মো. মোসলেম প্রধান, মো. আব্দুল লতিফ, ইউনুছ আহমেদ, মো. আমির আহম্মেদ ওরফে আমির আলী, মো. জয়নুল আবেদীন, মো. আব্দুল কুদ্দুস, মো. রিয়াজ উদ্দিন ফকির, মো. আকমল আলী তালুকদার, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল জব্বার এবং মো. ইসহাক শিকদারের আপিল আবেদনও শুনানির অপেক্ষায়।

জানা যায়, এখন পর্যন্ত ট্রাইব্যুনাল থেকে ৩৭টি মামলায় ৮৭ জনের বিরুদ্ধে রায় হয়েছে। ৯টির আপিল নিষ্পত্তি হয়েছে। যার মধ্যে ৬ জন আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। এখনও ৩০টির বেশি মামলা ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন আছে এবং আপিল শুনানির অপেক্ষায় আছে ২৬টি মামলা।

মামলার রায়ে ফাঁসি কার্যকর হয়েছে- জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লা, কামারুজ্জামান, আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, মতিউর রহমান নিজামী, মীর কাসেম আলী ও বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর।