ঢাকা, মঙ্গলবার ১লা ডিসেম্বর ২০২০ , বাংলা - 

এবার নোয়াখালীতে অস্ত্রের মুখে ধর্ষণ

ঢাকাপ্রেসটোয়েন্টিফোর.কম

বুধবার ১৪ই অক্টোবর ২০২০ সকাল ১১:৩৯:৩১

নোয়াখালী : নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায় অস্ত্রের মুখে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে আরমান হোসেন লালু (২১) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই নারীর ভাই বাদী হয়ে গত ৩ অক্টোবর কবিরহাট থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেন।

এর পরই পুলিশ গ্রেফতার করে প্রধান আসামি আরমানকে। আরমান উপজেলার ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের উত্তর জগদানন্দ গ্রামের মনির হোসেনের ছেলে।

মঙ্গলবার ওই ভুক্তভোগী নারী অভিযোগ করেন, প্রধান আসামি আরমানকে গ্রেফতারের পর অন্য ৫ আসামি ও তার সঙ্গীরা ক্ষেপে যায়। তারা হুমকি দেয়, যদি আরমানকে কারাগার থেকে বের করে না দেয়া হয়; তা হলে তাকে কেটে টুকরো টুকরো করে ফেলা হবে। তারা প্রতিদিন ওই নারীর বাড়ি হানা দিয়ে হুমকি দিচ্ছে।

আসামিরা প্রকাশ্য ঘুরে বেড়ালেও কবিরহাট থানা পুলিশ বলছে– প্রতিদিন অভিযান চালানো হচ্ছে, আসামিদের পাওয়া যাচ্ছে না। এখন সন্ত্রাসীদের ভয়ে তিনি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

পুলিশ সূএ জানায়, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ধর্ষিতার ভাই বাদী হয়ে গত ৩ অক্টোবর কবিরহাট থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

মামলার এজহারে জানা যায়, বিধবা ওই নারী তার বাড়িতে একা বসবাস করতেন। গত কয়েক মাস আগে আরমান তার সহযোগীদের নিয়ে ভিকটিমের বাড়িতে প্রবেশ করে। পরে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে আরমান তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ওই বিধবা নারীকে ধর্ষণ করে। এতে ভিকটিম ৫ মাসের অন্তঃসত্তা হয়ে পড়েন।

কবিরহাট থানার ওসি মির্জা মোহাম্মদ হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভুক্তভোগী নারীর ভাই বাদী হয়ে এ ঘটনায় ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

পুলিশ মামলার ১নং আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলা-কারাগারে পাঠিয়েছে। অন্য পাঁচ আসামিকে ধরতে অভিযান চলছে।