ঢাকা, শুক্রবার ১৪ই ডিসেম্বর ২০১৮ , বাংলা - 

কর্পোরেট বন্ডকে মূলধনের হিসাবায়ন করা হবে

স্টাফ রিপোর্টার।।ঢাকাপ্রেস২৪.কম

বুধবার ২রা আগস্ট ২০১৭ সকাল ০৭:৩১:৪১

কর্পোরেট বন্ড জনপ্রিয় করতে ব্যাংকগুলোর মূলধনের সঙ্গে এটি হিসাবায়ন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে এটিকে মূলধন পর্যাপ্ততার অনুপাতের সঙ্গে একত্রিত না করে অন্যান্য তারল্য হিসেবে দেখানোর কথা বলা হয়েছে।আজ মঙ্গলবার বিকেলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সম্মেলন কক্ষে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর সমন্বয় সভায় এ প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে কর্পোরেট বন্ড থাকলেও তা জনপ্রিয় হচ্ছে না। এর বিক্রি বাড়াতে ব্যাংকের সিএআরের সঙ্গে যুক্ত করতে ব্যাংকগুলো দাবি করে আসছে। সমন্বয় কমিটির সভায়ও এ দাবি জানানো হয়। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, এটির বিপরীতে যেহেতু সরকার কর্তৃক গ্যারান্টি নেই, সেহেতু সিএআর হিসেবে দেখানোর সুযোগ নেই। তবে ব্যাসেল-৩ অনুসারে অন্যান্য নগদ তারল্য হিসেবে এটি দেখানো যেতে পারে।

বৈঠক শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী বলেন, কর্পোরেট বন্ডের বিষয়ে বিএসইসি একটি প্রস্তাব দিয়েছে। সেটি কিভাবে কার্যকর করা যায় তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগকে বলা হয়েছে। এছাড়া ট্রেজারি বিল ও বন্ড বিক্রিতে সিকিউরড ওয়েবসাইটের ব্যবহার কিভাবে করা যায় সেই বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, সভায় ঢাকা-মার্কেন্টাইল ব্যাংক ও আজিজ কো-অপারেটিভের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রসঙ্গে আলোচনা হয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠান দুটি হাইকোর্টে যে রিট করেছে তা আইনিভাবে মোকাবেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দিতে গিয়ে অতিরিক্ত ফি দাবি করেছে মোবাইল অপারেটর কোম্পানিগুলো। এদিকে ব্যাংকগুলো দাবি করেছে অভিন্ন একটি সুনির্দিষ্ট ফি। বিষয়টি সুরাহা কিভাবে করা যায় তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়া মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের তথ্য নিশ্চিত হতে বিটিআরসির সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।

বৈঠকে সমবায় সমিতি ও ক্ষুদ্র ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স দেওয়ার ক্ষেত্রে সমবায় অধিদপ্তর ও মাইক্রোক্রডিট রেগুলেটরি অথরিটির (এমআরএ) মধ্যে সমন্বয় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সমন্বয় কমিটির সদস্য ব্যাংকিং খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক, শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি, বীমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ, যৌথ মূলধনী কোম্পানিগুলোর নিবন্ধনকারী সংস্থা আরজেএসসি, বিটিআরসির প্রতিনিধি সভায় উপস্থিত ছিলেন। তিন মাস পর পর এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।